Ananda ALo
Ultimate magazine theme for WordPress.

বাংলাদেশের ক্রিকেট কী এগুলো?

রেজানুর রহমান

‘অস্ট্রেলিয়া’র কষ্টর্জিত জয়। হোয়াইট ওয়াশ এড়ালো অস্ট্রেলিয়া’। অবশেষে জয়ের মুখ দেখল অস্ট্রেলিয়া। একটা সময় এই ধরনের সংবাদ শিরোনাম বাংলাদেশ দলের বেলায় হত। এখন অস্ট্রেলিয়ার বেলায় হচ্ছে। অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট পরাশক্তি। বাংলাদেশের সাথে প্রতিযোগিতায় নেমে সেই অস্ট্রেলিয়ার বেলায় যখন এ ধরনের সংবাদ শিরোনাম হয় তখন কী আমরা ধরে নিতে পারি বাংলাদেশের ক্রিকেট এগিয়েছে? কয়েকদিন আগেই জিম্বাবুয়ে সফর করে এসেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। ক্রিকেটের ৩ ফরমেটেই জিম্বাবুয়েকে হারিয়েছে। দেশে ফিরে ব্যস্ত সময় সূচির মধ্যেই অস্ট্রেলিয়ার মতো ক্রিকেট শক্তিধর দেশের সাথে লড়াইয়ে নামে। ৫ ম্যাচের টি-২০ টুর্নামেন্টে শুরুর ৩টিতে বাংলাদেশ জয় পেয়েছে। সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ। শুধু দেশে নয় গোটা বিশ্বেই এখন বাংলাদেশের ক্রিকেট বন্দনা শুরু হয়েছে। বাস্তবতা এমনই। জয়ী দলের পাশে সবাই থাকে। কিন্তু পরাজিতদের সাথে কেউ থাকে না। নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের ক্রিকেট এগিয়েছে। এতদিন বাংলাদেশের ক্রিকেট অপেক্ষাকৃত তারকা ক্রিকেটারদের ওপরই ভরসা করত। জিম্বাবুয়ে এবং দেশের মাটিতে বাংলাদেশে ক্রিকেট লড়াই বুঝিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ দলের তরুণ সদস্যরাও এখন দায়িত্ব নিতে জানে। এই যে একটা পরিবর্তন এটাই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ভবিষ্যৎ প্রেরনা হতে পারে।
তবে আনন্দের মাঝেও একটা অপ্রীতিকর কথা বলতে হয়। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ব্যাটিং ডিপার্টমেন্টকে আরও শক্তিশালী করা প্রয়োজন। টি-২০’র চতুর্থ ম্যাচে বাংলাদেশ দল যদি বেশি না আর ২০/২৫ রান বেশি করতে পারত তাহলে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে ম্যাচটি জেতা বোধকরি সম্ভব হতো না। আবার একই ওভারে সাকিব যদি ৫টি ছক্কা মারার সুযোগ না দিত তাহলে তো এই ম্যাচটিও বাংলাদেশের থাকতো। তবে অস্ট্রেলিয়ার সাথে এবারের ক্রিকেট লড়াই বাংলাদেশের তরুণ ক্রিকেটারদের মধ্যে একটা উদ্দীপনার সৃষ্টি করেছে। ওরা ক্রিকেট পরাশক্তি। আমরা কি ওদের সাথে পারব? এই যে নেতিয়ে পড়া মানসিকতা তার পরিবর্তন ঘটেছে। এখন প্রয়োজন সঠিক পরিকল্পনা এবং সঠিক যত্ন। তবেই বাংলাদেশকে কেউ আর দাবিয়ে রাখতে পারবে না।

লেখক-সম্পাদক, আনন্দ আলো

সম্পর্কিত

লেখা আহ্বান

আহারে, দেশের মানুষ!

পরীমনি কী বদলা নিলেন?