Home আরোও বিভাগ টিভি গাইড লেখক আবুল হায়াতের কথা!

লেখক আবুল হায়াতের কথা!

SHARE
Abul--Hayat

বরেণ্য অভিনেতা আবুল হায়াত। বর্তমানে একাধিক খÐ নাটক ও ধারাবাহিক নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। অভিনয়ের পাশাপাশি লেখালেখিও করেন তিনি। এবার বইমেলায় তার লেখা বই বের হয়েছে। কথা হলো তার সঙ্গে-

আনন্দ আলো: এবারের বইমেলায় কি কি বই বের হচ্ছে?

আবুল হায়াত: এবারের অমর একুশে বইমেলায় আমার চারটি বই পাওয়া যাবে। অনন্যা প্রকাশনী থেকে বেরোচ্ছে ‘এসো নীপবনে’, ‘ঢাকামি’ ও ‘জীবন খাতার ফুটনোট’। এ ছাড়া শব্দশিল্প প্রকাশনী থেকে বেরোচ্ছে গল্পের একটি  বই।

আনন্দ আলো: চারটি বইয়েরই প্রচ্ছদ কী বিপাশা হায়াতের করা?

আবুল হায়াত: এখন পর্যন্ত ২৬টি বই বেরিয়েছে আমার। এর মধ্যে বেশির ভাগ বইয়ের প্রচ্ছদ করেছে আমার মেয়ে বিপাশা হায়াত। ও চারুকলায় ভর্তি হওয়ার পর আর কাউকে দিয়ে আমার বইয়ের প্রচ্ছদ করাতে হয়নি। তা ছাড়া সে আমার লেখার সঙ্গে ছোটবেলা থেকে পরিচিত। আমাকে ব্যক্তিগতভাবেও খুব কাছ থেকে জানে। এ জন্য আমার বইয়ের প্রচ্ছদ করতে তার বেশি সুবিধা হয়। আর ও আমার বইকে যেভাবে যতœ নিয়ে উপস্থাপন করবে সেটা অন্য কেউ পারবে বলে আমার মনে হয় না। তার করা প্রচ্ছদ বরাবরই আমার পছন্দের।

আনন্দ আলো: প্রচার চলতি ধারাবাহিকগুলো নিয়ে বলবেন-

আবুল হায়াত: বর্তমানে আমার অভিনীত বেশ কিছু ধারাবাহিক নাটক বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচার হচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে এনটিভিতে ‘যখন কখনো’, আরটিভিতে ‘আয়না’ ও ‘বন্ধু বটে’, এটিএন বাংলায় ‘রূপালী প্রান্তর’, একুশে টিভিতে ‘বিদেশি জামাই’ ও ‘ভবঘুরে’ নাটকগুলো। এ মাসের শেষের দিকে নতুন আরও তিনটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় শুরু করব।

আনন্দ আলো: ভাষার একটি নাটকে নাকি অভিনয় করেছেন?

আবুল হায়াত: হ্যাঁ। স¤প্রতি ভাষার ওপর ভিত্তি করে ‘লাল রঙের গল্প’ নামের একটি নাটক হয়েছে। এনটিভিতে এটি প্রচার হয়। মাহমুদ দিদারের রচনা ও পরিচালনায় এ নাটকে অভিনয় করেছেন তৌকির আহমেদ ও বিপাশা হায়াত।

ছোটদের মুখে মুখে বজলু চোর

বজলু চোরর নাম এখন ছোটদের মুখে মুখে। দেশের প্রথম শিশুতোষ বেসরকারি টিভি চ্যানেল দুরন্ততে প্রচারাধীন ‘টিরিগিরি টক্কা’ ধারাবাহিক নাটকের একটি চরিত্র চোরদের সর্দার বজলু চোর। সপ্তাহে পাঁচদিন প্রচার হচ্ছে শিশুদের জনপ্রিয় সায়েন্সফিকশন এই নাটকটি। এম আসলাম লিটন-এর রচনা ও ধ্বনি চিত্রের প্রযোজনায় এটি পরিচালনা করেছেন তৌহিদ খান বিপ্লব। নাটকের নেগেটিভ চরিত্র বজলু; চোর হওয়া সত্তে¡ও ছোটদের মনে অভিনেতা নিথর মাহবুব-এর প্রতি তৈরি হয়েছে ভালোবাসা। এই চরিত্রটিকে নাট্যকার এম. আসলাম লিটন তার লেখনির নৈপুণ্যে শিশু-কিশোরদের কাছে আকর্ষণীয় করে তুলেছেন, তাছাড়া এই চরিত্রের অভিনেতা নিথর মাহবুব দেশের নন্দিত একজন মাইম শিল্পী। যার কাজই হলো এক্সপ্রেশান নিয়ে। ফলে নাটকে বজলু চোর চরিত্রটি তার অভিনয়শৈলীতে হয়েছে আরও প্রাণবন্ত। একটা সময় ছিল বিটিভিতে কোনও নাটক হলে বেশ আলোচনায় চলে আসত। নাটকের কোন চরিত্র ভালো করলে সেই চরিত্রের মানুষটিকে রাস্তা-ঘাটে দেখলেই চিনে ফেলত। অনেক বছর পর যেন আবার সেই দিন ফিরিয়ে আনল দুরন্ত টিভি। শিশুতোষ অনুষ্ঠানের কারণে এই টিভির মূল দর্শক শিশু-কিশোররা হলেও শিশু-কিশোরদের কল্যাণে এই টিভির অনেক অনুষ্ঠানের দর্শক এখন বড়রাও। পরিবারের বড়দের মধ্যে অনেকেই নিয়মিত দেখছেন ‘টিরিগিরি টক্কা’ নাটকটি।

শ্যামলের চিঠি!

এই যুগে চিঠি লিখে কে-ই বা প্রেম করেন? তবে একটা সময় প্রিয়জনের কাছে চিঠি লেখাটা ছিল খুব স্বাভাবিক ব্যাপার। সত্তর দশকের দিনগুলোর এমন একটি প্রেমের গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘চিঠি’। এটি নির্মাণ করেছেন এস এম ফজলে রাব্বি। এতে মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন শ্যামল মাওলা। ভালোবাসা দিবসে মুক্তি পায় ডেডলাইন প্রোডাকশনের ইউটিউব চ্যানেলে। রাব্বি বলেন,  একটি ভালোবাসার ভিন্ন রকম গল্প নিয়ে ‘চিঠি’ নির্মাণ করেছি। বর্তমান সময়ে অনলাইন আমাদের বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম। তাই ইউটিউবে এটি মুক্তি দেই। ভালোই সাড়া পাচ্ছি। ‘চিঠি’তে আরও অভিনয় করেছেন মৃণালিনী শাওলী ও সেলিম আহমেদ