SHARE

এবার মেলা সবচেয়ে বড় পরিসরে হচ্ছে। যার ফলে মেলায় একজন দর্শনার্থী এসেই প্রথমে বেশ ঝামেলায় পড়বেন। কোথায় কী রয়েছে তা জানতে বা খুঁজে নিতে হবে তাকে। যেমন মেলার কোথায় তথ্য কেন্দ্র, কোথায় নামাজের স্থান কিংবা কোথায় রয়েছে নতুন বইয়ের মোড়ক উম্মোচন স্থান তা জানাটা জরুরি। বইমেলা এবার বড় পরিসরে হওয়াতে এর আঙ্গিক ও সাজসজ্জায় বেশ পরিবর্তন হয়েছে। মেলায় প্রকাশনী সংস্থার সকল স্টল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে রয়েছে। আর সরকারী-বেসরকারী সংস্থা তথা এনজিওর স্টলগুলো রয়েছে বাংলা একাডেমি চত্বরে। মেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যাণ অংশে মুক্তমঞ্চের পাশে রয়েছে নতুন বইয়ের মোড়ক উম্মোচনের স্থান। আর স্বাধীনতাস্তম্ভের পশ্চিম পাশে রয়েছে লেখক বলছি মঞ্চ। লিটল ম্যাগ চত্বর রয়েছে মুক্ত মঞ্চের পাশেই। এবারই প্রথম লিটল ম্যাগ চত্বর একাডেমি চত্বর থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নেয়া হয়েছে। ছোটদের বইয়ের রাজ্যে যেতে হলে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের অংশে যেতে হবে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রবেশ করলে পূর্ব পাশের কর্নারে রয়েছে শিশু চত্বর। মেলার যে কোনো তথ্য জানার জন্য মেলায় রয়েছে দুটি তথ্য কেন্দ্র। একাডেমির বর্ধমান হাউজে রয়েছে একটি এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের প্রবেশমুখে রয়েছে আরেকটি তথ্যকেন্দ্র। যেখান থেকে মেলার যে কোনো তথ্য সহ নতুন বইয়ের খবর এবং মোড়ক উম্মোচনের খবরাখবর সরবরাহ করা হয়। একাডেমি চত্বরে বর্ধমান হাউজের পেছনে রয়েছে মূলমঞ্চ। যেখানে প্রতিদিন আলোচনা অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। সাংবাদিকদের তথ্য আদান-প্রদানের জন্য একাডেমির তথ্যকেন্দ্রের পাশে রয়েছে একটি মিডিয়া সেন্টার। মেলায় বাংলা একাডেমির পুকুর পাড়ের কাছে রয়েছে একটি টয়লেট। আর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের অংশেও রয়েছে টয়লেট ও নামাজের ব্যবস্থা। এবার টয়লেট ও নামাজের জায়গাকে বেশ সম্প্রসারিত করা হয়েছে। প্রতি বছরের মতো এবারও হুইল চেয়ার সেবা রয়েছে। মেলার প্রবেশমুখে দায়িত্ব পালন করছেন একঝাঁক সেচ্ছাসেবক দল। যারা মেলায় আসা প্রতিবন্ধী তথা বয়স্ক মানুষকে হুইল চেয়ারে করে মেলা ঘুরিয়ে দেখান। মেলায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পূর্ব ও পশ্চিম প্রান্তে রয়েছে দুটি ফুড কোর্ট।