SHARE

আনন্দ আলো: ১০ এপ্রিল আপনার জন্মদিন। এই দিনটা কীভাবে পালন করেন?

জুয়েল আইচ: আমি জন্মদিন তেমন একটা পালন করি না। এখন আমার মেয়েই আমার জন্মদিন পালন করে। আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব এবং ভক্ত শুভানুধ্যায়ীরা জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানায়। ফুল নিয়ে আসে। কেউ কেউ কেক নিয়ে হাজির হয়। বেশ কয়েক বছর ধরে চ্যানেল আই আমার জন্মদিন পালন করে আসছে। তাদের তারকা কথন অনুষ্ঠানে আমাকে নিয়ে জন্মদিনটা পালন করে থাকে। গল্প করা হয়। ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানায়, কেক কাটা হয়। আবার দেখা যায় আমার কোনো ভক্ত বিশেষ কোনো প্রোগ্রামের আয়েজন করে। সেখানে হৈ হুল্লোড় করে জন্মদিন পালন করা হয়।

আনন্দ আলো: ছোটবেলার জন্মদিন আর এখনকার জন্মদিনের মধ্যে কী পার্থক্য খুঁজে পান।

জুয়েল আইচ: পার্থক্য তো অবশ্যই আছে। আমাদের পরিবারে অনেক মানুষ ছিল। অথচ পরিবারের সদস্যদের মধ্যে জন্মদিন পালনের প্রচলন ছিল না।  আমার জন্মদিন পালনের জন্য চ্যানেল আই আমাকে উৎসাহিত করেছে। তারাই জন্মদিনের বিষয়টা জানান দিয়েছে। এখনকার জন্মদিন মানে তো জীবন থেকে একটা বছর চলে যাওয়া। এটা আনন্দের বিষয় নয়। একটা বয়সের পর এই চিনত্মাটা মাথায় আসে। বয়স বাড়ার সাথে সাথে মনে হয় আয়ু কমছে।

আনন্দ আলো: সবার আগে জন্মদিনে কে উইশ করে?

জুয়েল আইচ: মেয়ে সবার আগে আমার জন্মদিনে উইশ করে। ও আগে থেকে সব কিছু জোগাড় করে রাখে। আমাকে ফুল দেয়। তারপর আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব এবং ভক্ত শুভানুধ্যায়ীরা উইশ করে শুভেচ্ছা জানায়। ফুল নিয়ে আসে। কেউ কেউ মোবাইল ম্যাসেজ পাঠিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানায়।

আনন্দ আলো: জন্মদিনে কী উপহার পেতে ভালো লাগে?

জুয়েল আইচ: জন্মদিনে ফুল উপহার পেতে আমার খুবই ভালো লাগে। ফুলের চাইতে সুন্দর উপহার আর হয় না। জন্মদিনের ফুল তিন চার দিন  আমার চোখের সামনে থাকে। বোধকরি ফুল আমাকে জানান দেয় তোমার জীবন ফুরিয়ে আসছে।