Home শীর্ষ কাহিনি প্রচ্ছদ মুখ জয়ার জয় জয়কার

জয়ার জয় জয়কার

SHARE

রেজানুর রহমান
কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেতা ও পরিচালক শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় আমাদের প্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান সম্পর্কে এতোটাই মুগ্ধ কথন শোনাচ্ছিলেন যে আমরাও তা মুগ্ধ হয়ে শুনছিলাম। প্রিয়জনের ব্যাপারে অন্যের মুখ থেকে প্রশংসা বাক্য শোনার মধ্যে একটা আলাদা আনন্দ আছে। তাও আবারও পাশের দেশের বিশিষ্ট একজন মানুষ প্রশংসা করছেন। কাজেই আনন্দ আর উচ্ছ¡াসতো একটু বাড়ারই কথা। শিব প্রসাদ মুখোপাধ্যায় বলছিলেন, “জয়া আহসান আমার অনেক প্রিয় একজন অভিনেত্রী। তার অভিনয়ের আমি একজন মুগ্ধ দর্শক। বাংলাদেশে তো বটেই ভারতেও দারুন ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন জয়া আহসান। নতুন কোনো ছবির জন্য আগামী দুই বছরেও ওর শিডিউল পাওয়া যাবে কিনা বলা মুশকিল।
জয়া আহসান দেশ সেরা একজন অভিনেত্রীর নাম। অভিনয় সৌকর্যে পাশের দেশেও ব্যাপক জনপ্রিয় তিনি। অভিনয়ের জন্যই বছরের একটা বড় সময় কলকাতায় কাটছে তার। বাংলাদেশ-ভারত যৌথ প্রযোজনার আলোচিত ছবি ‘কণ্ঠ’ বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছে। বাংলাদেশে ছবিটির প্রচার স্বত্ব পেয়েছে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম। বাংলাদেশে ‘কণ্ঠ’ মুক্তির আগে ছবির যৌথ পরিচালক শিব প্রসাদ মুখোপাধ্যায় ও নন্দিতা রায় ঢাকায় এসেছিলেন। সাথে ছিলেন আমাদের প্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। বলতে গেলে জয়ার বৃহস্পতি এখন তুঙ্গে। ভাগ্যল²ী বোধকরি নিজ হাতে জয়ার হাতে অনেকগুলো উপহার তুলে দিয়েছেন। সাম্প্রতিক সময়ে জয়ার সাফল্যের চিত্রটা দেখুন কতটা প্রেরণাদায়ক। জয়া অভিনীত আলোচিত ছবি ‘দেবী’ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছে। অর্থাৎ দেবীতে, দক্ষ অভিনয়ের স্বীকৃতি স্বরুপ জয়া আহসান সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কারে ভ‚ষিত হয়েছেন। ভারত-বাংলাদেশ যৌথ প্রযোজনার ছবি বিনিময়ের আওতায় এই মুহূর্তে ভারতের কলকাতায় যে ছবিটি চলছে তার নাম ‘খাচা’। ওই ছবিরও প্রধান অভিনেত্রী জয়া আহসান। বাংলাদেশে ‘কণ্ঠ’ নামের যে ছবিটি চলছে সেই ছবিরও প্রধান অভিনেত্রী জয়া আহসান। একই সময়ে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তি, দুই দেশে নিজের অভিনীত আলোচিত দুটি ছবি প্রদর্শন হচ্ছে… একজন অভিনেত্রীর জন্য এটা বিশেষ এক মুহূর্ত। আমাদের ধারনা একই সময়ে এতো আনন্দের খবর, এতো এতো স্বীকৃতি উপমহাদেশের আর কোনো অভিনেত্রীর বেলায় বোধকরি আসেনি।

আসলে যোগ্যতার গুনেই জয়া এই স্বীকৃতি পেয়েছেন। এক সময়ে আমাদের টিভি নাটকে ব্যস্ততম অভিনেত্রী ছিলেন জয়া আহসান। জয়ার অভিনীত টিভি নাটক মানেই ‘হিট’ নাটক। কারণ জয়া নতুন কোনো নাটকে অভিনয় করার আগে নির্দিষ্ট চরিত্র নিয়ে গভীর ভাবে ভাবেন। চরিত্রের প্রয়োজনে কোনো কিছুতেই ছাড় দেন না। চলচ্চিত্রের ক্ষেত্রেও তাই। চরিত্র অনুযায়ী যা যা করা দরকার সে ক্ষেত্রে জয়ার বিকল্প আর কেউ নেই। কলকাতার একটি আলোচিত সিনেমায় জয়া বেশ খোলামেলা অভিনয় করেছেন। এনিয়ে বেশ সমালোচনাও হয়েছে। কিন্তু জয়া যে চরিত্রটিতে অভিনয় করেছেন কাহিনীতেই তা ছিল খোলামেলা চরিত্র। কাজেই নাচতে নেমে ঘোমটা টানার পক্ষে নন জয়া আহসান। একটি নতুন ছবিতে সার্কাস দলের একটি গুরুত্বপুর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া আহসান। ছবিটি মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। ইতিমধ্যে ছবিটির কাহিনী ও জয়ার চরিত্রের নানা দিক প্রচার মাধ্যমে প্রশংসা পেতে শুরু করেছে। আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে ছবিটির ব্যাপারে। ছবি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ সুত্রে জানা গেছে ছবিটিতে নিজের চরিত্রকে বিশ্বস্ততার সাথে ফুটিয়ে তোলার জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছেন জয়া আহসান। সার্কাস দলের সদস্য হিসেবে অভিজ্ঞতা সঞ্চয়ের পর অভিনয়ে নেমেছিলেন। আবারও শিব প্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের কথায় আসি। শিব প্রসাদ বলেছেন, জয়া হচ্ছে এমন একজন শিল্পী, যে ভীষণ প্রতিভাময়ী, সিরিয়াস। যে অভিনয়কে ভালোবাসে, শিল্পকে ভালোবাসে। যা বর্তমান সময়ে অন্য শিল্পীদের মধ্যে কম দেখা যায়। ওকে দেখলে মনে হয়, ওর জীবনে আর কিছুই নেই অভিনয় ছাড়া।
আসলেই আমাদের জয়া আহসান একজন অভিনয় অন্তপ্রাণ মানুষ। অভিনয়কে ভালোবেসেই দেশ-বিদেশে ঘুরছেন। আর তাই বর্তমান সময়ে যে দিকে তাকাই শুধুই দেখি জয়ারই জয় জয়কার। গুড লাক জয়া আহসান। গুড লাক…
ডিসেম্বরের শেষে মুক্তি পাচ্ছে জয়ার ‘রবিবার’
কলকাতার নির্মাতা অতনু ঘোষের সিনেমায় দুজনই অভিনয় করেছেন। অতনুর প্রথম ছবি ‘ময়ুরাক্ষী’-তে দেখা গিয়েছিল বুম্বাদা খ্যাত অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে। এরপর অতনুর দ্বিতীয় ছবি ‘বিনিসুতোয়’ অভিনয় করেছেন জয়া আহসান।
এবার অতনু প্রথমবারের মতো এক করেছেন দুই বাংলার দুই সুপারস্টার প্রসেনজিৎ ও জয়া আহসানকে। নতুন ছবিটির নাম ‘রবিবার’। সিনেমাটি আগামী ২৭ ডিসেম্বর মুক্তি পাবে বলে জানিয়েছেন জয়া।

একটা সম্পর্কের গল্প ও থ্রিলার মিলিয়ে তৈরি হয়েছে ‘রবিবার’। সিনেমায় দেখা যাবে জয়া-প্রসেনজিতের একটা সম্পর্ক ছিল, কিন্তু সেটা ভেঙে যায়। হঠাৎ একদিন রবিবারে তাদের সঙ্গে দেখা হয়। প্রসেনজিৎ অভিনয় করছেন অসীমাভর চরিত্রে, আর জয়ার চরিত্রের নাম সায়নী।
স¤প্রতি সিনেমাটির টিজার প্রকাশ করেছে প্রযোজনা সংস্থা ইকো এন্টারটেইনমেন্ট। টিজারের শেষ অংশে প্রসেনজিৎ জয়াকে বলেছেন, আমি ভালো নেই সায়নী, একদম ভালো নেই।
সিনেমার টিজারে প্রশংসায় ভেসেছেন প্রসেনজিৎ, জয়া। এখন শুধুই মুক্তির অপেক্ষা।
দুই বাংলার
প্রেক্ষাগৃহে জয়া
সাফটা চুক্তির আওতায় কলকাতা ও বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহগুলোতে মুক্তি পেয়েছে দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসানের দুই ছবি ‘কণ্ঠ’ ও ‘খাচা’। এর মধ্যে ‘কণ্ঠ’ কলকাতার ছবি। এটি পরিচালনা করেছেন শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় ও নন্দিতা রায়। উইনডোস প্রোডাকশনের ব্যানারে ‘কণ্ঠ’ বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছে ৮ নভেম্বর। এই প্রথম জয়া অভিনীত ভারতীয় ছবি বাংলাদেশে মুক্তি পেল।
এ ছবির গুরুত্বপূর্ণ একটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া আহসান। তার চরিত্রটি একজন স্পিচ থেরাপিস্টের। কণ্ঠ হারিয়ে বিপর্যস্ত বাচিক শিল্পীকে কথা বলার নতুনভাবে অনুপ্রেরণা জোগাতে দেখা যাবে তাকে। জয়া ছাড়াও এই ছবিতে বিভিন্ন চরিত্রে আরও অভিনয় করেছেন পাওলি দাম, শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়, কনিনীকা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ অনেকে। ‘কণ্ঠ’ কলকাতায় মুক্তি পেয়েছিল গত ১০ মে।

অন্যদিকে একই দিনে অর্থাৎ ৮ নভেম্বর কলকাতায় মুক্তি পেয়েছে জয়া অভিনীত আরেক ছবি ‘খাচা’। ইমপ্রেস এর এই ছবিটি পরিচালনা করেছেন আকরাম খান।
জয়া বলেন, ‘সমস্ত নিয়ম মেনেই দুই দেশের মধ্যে ছবি দুটির আদানপ্রদান হয়েছে। প্রথমবারের মতো আমার ভারতীয় ছবি দেশের হলে মুক্তি পেল। এটা আমার কাছে ভীষণ আনন্দের। বাংলাদেশের দর্শকরা ‘কণ্ঠ’ দেখে একেবারেই হতাশ হবেন না। অন্যদিকে ‘খাচা’ ছবিটিও কলকাতার দর্শকদের ভালো লাগবে বলে আমার বিশ্বাস। ঠেকে গেছে যাদের এ রকম ভাবনার মানুষকে অনুপ্রেরণা দেবে ছবিটি।’
নন্দিতা রায় ও শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের যৌথ পরিচালনায় ছবিটি গত মে মাসে ভারতে মুক্তি পায়। ছবির গল্পে, দেখা যায়, অর্জুন পেশায় একজন রেডিও জকি, যার গলায় ক্যান্সার ধরা পড়ে। ফলে, অপারেশন করে স্বরযন্ত্র কেটে বাদ দিতে হয়। গলা দিয়ে যখন অদ্ভুত স্বর বেরোতে থাকে, হতাশায় আক্রান্ত হন অর্জুন। তখন এগিয়ে আসেন ‘স্পিচ থেরাপিস্ট’ জয়া আহসান। ক্যানসারের সঙ্গে লড়াইয়ের গল্প রয়েছে সিনেমার কাহিনিতে। শিবপ্রসাদ নিজে অর্জুন চরিত্রে অভিনয় করেছেন। তার স্ত্রীর ভূমিকায় পাওলি দাম, স্পিচ থেরাপিস্ট জয়া আহসান ছাড়াও এ ছবিতে আরো আছেন কনীনিকা বন্দোপাধ্যায়, বিপ্লব দাশগুপ্ত ও পরান বন্দোপাধ্যায়।

দেবী’র হাত ধরেই এল জাতীয় পুরস্কার
জয়া আহসান এপার-ওপার দু’পারেই তাঁর অভিনয়শৈলীতে মুগ্ধ করে রেখেছেন দর্শকদেরকে। তাঁর ক্যারিশ্মা, জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বী।এ বার বাংলাদেশ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের মঞ্চে সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পেলেন জয়া আহসন। সৌজন্যে, আনাম বিশ্বাস পরিচালিত, হুমায়ুন আহমেদের গল্প অবলম্বনে সিনেমা ‘দেবী’। এই নিয়ে পর পর চার বার জাতীয় পুরস্কার পেলেন অভিনেত্রী।
শ্রেষ্ঠ ছবি নির্বাচিত হয়েছে সইফুল ইসলাম পরিচালিত ‘পুত্র’। সেই ছবিতেও অভিনয় করেছেন জয়া। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের একমাত্র রাষ্ট্রীয় পুরস্কার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। সেখানে সম্মানিত হয়ে উচ্ছ¡সিত জয়া আহসান।