Home প্রতিবেদন গল্প কেন বই পড়তে হবে

কেন বই পড়তে হবে

SHARE

মুহম্মদ জাফর ইকবাল, কথাসাহিত্যিক

কেন আমরা বই পড়ব? তার একটা চমৎকার ব্যাখ্যা আছে আমার কাছে। প্রথমত আমি একটা জিনিস বলি সবাইকে… কেউ যদি টেলিভিশনে একটা জিনিস দেখে সেটা টেলিভিশন তাকে সরাসরি দেখায়। এক্ষেত্রে কল্পনার কোনো ‘স্কোপ’ নাই। বিষয়টা সরাসরি দেখিয়ে দেয়া হচ্ছে। আর যদি বই হয়… বইয়ে একটা কিছু লেখা থাকে…. ধরা যাক বইয়ে লেখা আছে নীল আকাশ। তখন সে বইয়ে নীল আকাশ দেখতে পারছে না। সে নীল আকাশ শব্দটা চোখ দিয়ে পড়ছে। রেটিনা থেকে সেটা তার ব্রেনে যাচ্ছে। ব্রেণ সেটা বিশ্লেষণ করছে। তারপর সে কল্পনা করছে নীল আকাশকে। এই যে প্রক্রিয়াটা… অত্যন্ত আরাম দায়ক প্রক্রিয়া। এই প্রক্রিয়া চালু না থাকলে ব্রেণ ডেভলপ করে না। সে জন্য কেউ যদি টেলিভিশন দেখে তার মাঝে এই প্রক্রিয়াটা চালু হয় না। তার মস্তিস্কে চিন্তার ক্ষেত্রে সেই প্রক্রিয়াটা চালু হয় না। মস্তিস্কের ব্যায়াম হয় না। কিন্তু বই পড়লে মস্তিস্কের ব্যায়াম হয়। এটা হলো বই কেন পড়তে হবে তার পক্ষে প্রধানতম কারণ। মস্তিস্ককে ডেভলপ করার জন্য বই পড়া জরুরি।
আর যখন কেউ বই পড়া শিখে যায় তখন তার চিন্তা-চেতনার জগৎ খুলে যায়। পৃথিবীতে কত বিচিত্র বিষয়ের ওপরই না বই লেখা হয়েছে। আমরা তো কখনই কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দেখা পাব না। কাজী নজরুল ইসলামের সাথে আমাদের দেখা হবে না। জীবনানন্দ দাসের সাথেও আমাদের দেখা হবে না। কিন্তু যখন তাদের লেখা বইগুলো পড়ি তখন মনে হয় তারা আমাদের সামনেই বসে আছেন। আমাদের সাথে কথা বলছেন। হুমায়ূন আহমেদ চলে গেছেন। কিন্তু তাঁর বইগুলো রয়ে গেছে। একজন পাঠক যখন তার বই পড়বেন তখন তিনি নিশ্চয়ই অনুভব করবেন হুমায়ূন আহমেদ তার সাথে কথা বলছেন। তার পাশে বসে আছেন। এই অনুভবটা কিন্তু বিশাল একটা ব্যাপার। কাজেই সবার উচিৎ বই পড়া। সবচেয়ে বড় কথা ছোটবেলায় একবার বই পড়ার অভ্যাস গড়ে উঠলে ছেলে -মেয়েদের জন্য আর দুশ্চিন্তা করতে হবে না। কারণ বই-ই তাকে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলবে।
ছোটবেলায় বই দেখতে দেখতেই বড় হয়েছি। হুমায়ূন আহমেদ এই যে এতবড় লেখক হয়েছেন তার একটাই কারণ ছিল তিনি অতি অল্প বয়সেই অনেক বেশি বই পড়ার সুযোগ পেয়েছিলেন। কেউ যখন অনেক বই পড়ে তখন তার চিন্তা চেতনার জগৎ খুলে যায়। লেখালেখির ক্ষমতা জন্মায়। যারা লেখক হতে চান অবশ্যই তাদের বই পড়া উচিৎ। আমাদের পরিবারের প্রায় সকলেই লেখালেখির সাথে জড়িত। এর কারণ একটাই সবাই বই পড়তে ভালোবাসে। আমরা সবাই বই পড়তে পড়তে বড় হয়েছি।