Home প্রতিবেদন আহ কী মজার আইসক্রিম!

আহ কী মজার আইসক্রিম!

SHARE

মোহাম্মদ তারেক : রাজধানীর জনপ্রিয় আইসক্রিম হাউজ ক্রিম অ্যান্ড ফাজ-এ নিয়মিত আসে রবিন। রবিনের অফিস গুলশান-১ এ। গুলশান থেকে বনানীর ১১ নম্বর রোডে অবস্থিত এই আইসক্রিম শপের দূরত্ব বেশি না। অফিস শেষে নিরিবিলি পরিবেশে কিছুটা সময় কাটাতে তার ভালো লাগে। আর যদি আইসক্রিমের টেস্টের কথা বলতে হয় তাহলে ক্রিম অ্যান্ড আজ-এর আইসক্রিম। আহ্! স্বাদ এবং গন্ধে অতুলনীয়। আজও অফিস শেষে রবিন ক্রিম অ্যান্ড কাজ-এ এসেছে। সাধারনত সে একা খায়। সামনে থাকে ল্যাপটপ। আইসক্রিম শপ জুড়ে ওয়াইফাই সুবিধা থাকার কারণে আইসক্রিম খেতে খেতে ইন্টারনেটে ব্যবসা সংক্রান্ত সব কাজ সেরে ফেলে সে। ল্যাপটপ থেকে মুখ তুলতেই পাশের টেবিলে বসা একটি সুন্দরী মেয়ের দিকে রবিনের দৃষ্টি যায়। রবিন ভাবতে থাকে সে মেয়েটিকে কোথায় যেন দেখেছে। ততক্ষণে মেয়েটিও মুখ তুলে তাকিয়েছে।
ক্রিম অ্যান্ড ফাজ: আহ কি মজার আইসক্রিম। আইসক্রিম মানেই মজার মজার ফ্লেভার। হরেক নামের সুস্বাদু আইসক্রিম দেখলেই যেন জিভে জল চলে আসার অবস্থা। ২০০৫ সালে ক্রিম অ্যান্ড ফাজ ব্যাংককে যাত্রা শুরু করে। এই আইসক্রিম পার্লারটির আছে দক্ষ সুইচ কারিগর ও আইসক্রিম ল্যাব। তিন বছরের মাথায় এটি ছড়িয়ে পড়ে ইন্দোনেশিয়া, ভারত ও মালয়েশিয়ায়। ক্রিম অ্যান্ড ফাজ স্বাদের ওপর বাদাম আর স্ট্রবেরি ছড়িয়ে দেয়। এর গায়ে থাকে চকোলেটের টেক্সার। গ্রাহক নিজের পছন্দ মতো মিলমিশও করে নিতে পারে। ক্রিম অ্যান্ড ফাজের হাউজ গুলোতে আপনি দীর্ঘ মেন্যু পাবেন, যা দেখে এটার সঙ্গে ওটা মিলিয়ে নিজেই নতুন ফ্লেভার আবিস্কার করতে পারবেন। চকোলেট, ফ্রেঞ্চ ভ্যানিলা, স্ট্রবেরি সহ ক্রিম অ্যান্ড ফাজ এর আছে ২৭টি ভিন্ন ভিন্ন ফ্লেভার। এসব ফ্লেভারের সঙ্গে পছন্দ সই উপকরণ যেমনÑ সুইস চকোলেট, কেক, চকোলেট চিপস বা কুকিজ মিলিয়ে বানানো যায় হাজারো আইসক্রিম। সেই সঙ্গে আছে ফাজের হেভেনলি মিল্ক শেক, কফি, স্যান্ডউইচ এবং আরো অনেক কিছু। ক্রিম অ্যান্ড ফাজ এর বিশেষত্ব তৈরি হয় বাদাম, ফল, চকোলেট আর বরফ কুচি দিয়ে।
ফরাসি বংশোদ্ভুত লেবানিজ ব্যবসায়ী ফ্রেড মোয়াদ ক্রিম অ্যান্ড ফাজের মালিক। তিনি মোট সাতটি কম্পানির চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার। ব্যাংককে তার হেড অফিস। রোয়াল ডালের ‘চার্লি অ্যান্ড দ্য চকোলেট ফ্যাক্টরি’ ছবিটি ফ্রেডকে আইসক্রিম পার্লার তৈরির স্বপ্ন দেখায়। তিনি খুঁজতে থাকেন দক্ষ কারিগর। যারা আইসক্রিম ভালোবাসেন। আইসক্রিম নিয়ে কাজ করতে পছন্দ করেন। ফ্রেডও চেয়েছিলেন ক্রিম অ্যান্ড ফাজের গ্রাহকরাও চার্লি অ্যান্ড দ্য চকোলেট ফ্যাক্টরির উনলির মতো সৃজনশীল হবে। ক্রিম অ্যান্ড ফাজ নামটিও ফ্রেডেরই দেওয়া। ক্রিম তো সবাই মানে, আর ফাজ মানে মিঠাই। ফ্রেড জাজ বলতে দেখেছিলেন চকোলেট কুচির নহর যাতে গ্রাহক ইচ্ছামতো অবগাহন করবে। বানাবে নতুন নতুন রেসিপি। ফ্রেডের শ্লোগানÑ ‘সবার জন্য আইসক্রিম’।
আইসক্রিম শপের সেই আড্ডা: নাবিলার ভীষণ পছন্দের খাবার আইসক্রিম। আইসক্রিম না হলে তার চলে না। আজ এখানে এসে ভীষণ খুশি সে। নাবিলা প্রায় দুবছর পর কানাডা থেকে দেশে ফিরল। কানাডাতে সে বায়োকেমিস্ট্রি নিয়ে পড়ালেখা করছে। আজ বিকেলে নাবিলা তার দুই বান্ধবী নীলিমা ও সাদিয়াকে নিয়ে বেড়াতে বের হয়েছিল। বনানীর ১১ নম্বর রোডে ক্রিম অ্যান্ড ফাজ এর সাইন বোর্ড দেখে সে প্রথমে বড় রকমের একটা হোচট খেয়েছে। বাংলাদেশে ক্রিম অ্যান্ড ফাজ আইসক্রিম, কি আনন্দ।
ক্লাসিক আইসক্রিম: ক্রিম অ্যান্ড ফাজ এর আইসক্রিম মানেই ক্লাসিক টেস্ট। আইসক্রিমের বিভিন্ন স্বাদের টেস্ট পেতে চাইলে আপনাকে এখানে আসতেই হবে। আইসক্রিমের সাথে রেস্টুরেন্টের পরিবেশটাও হওয়অ চাই আন্তরিক। সব মিলিয়ে আপনার জন্য আদর্শ ও অনবদ্য একটি আইসক্রিম শপ ক্রিম অ্যান্ড কাজ। এখানে নিয়মিত ভাবে ১৮টি স্বাদের আইসক্রিম পাবেন। আর ২৮ ধরনের মিক্সইন চয়েজ করে নিজের মতো আপনি তৈরি করতে পারেন।
কম থেকে বেশি সব দামের আইসক্রিম পাবেন ক্রিম অ্যান্ড ফাজে। দেখে নিন কি কি আছেÑ ওয়াফল বোল, কোন, প্রিমিয়াম মিশ্রণ, ম্যাঙ্গো প্রলিন, মোচা ফাজ টেম্প টেশন, পিনাট বাটার, মিন্ট চকোলেট, বাটার স্কচ, হুইচ পেড ক্রিম, গোল্ডেন ম্যাঙ্গো, চকলেট স্ট্রবেরি হেভেন, চকলেট ভ্যানিলা চার্লট, হেজেল নাট চকলেট প্যারালাইন, হানি লেমন সারবেট, ক্যারামেল ফাজ, চকো পিস্তাচিত ক্রাঞ্চ, স্ট্রবেরি কুকি চিসি কেক, প্ল্যান ওয়াফল কোন, চকোলেট ডিপপেড ওয়াফল কোন, চকোলেট নাটক ওয়াফল, ওয়াফল বল, চকোলেট রেইনবো ওয়াফল বল, ক্যারামেল ফাজ উইপপেড ক্রিম, স্ট্রবেরি শর্ট কেক, চকোলেট নাভোরস, রকি রোড, ব্লাক ফরেস্ট, বানানা চকলেট ফাজ, কুকি ড্রিম, বেলজিয়াম চকলেট নয়েসর্টি, চকোলেট ট্রাফল সেনসেশন, বাটার স্কচ ভ্যানিলা। ব্লস বেলজিয়াম ওয়াফল উইথ সি এন্ড এফ ক্রিয়েশন বেনোফাই টফি, বেলজিয়াম ওয়াফল উইশ ম্যাপল সিরাপ, বেলাজিয়াম ওয়াফল উইথ চকোলেট আইসক্রীম, চকোলেট স্ট্রবেরি হ্যাভেন, এসপ্রেসসো কুকি মিক্স এবং ওরিও পিনাট বাটার আইসক্রিমের ইনোভেটিভ সব রেসিপি।

নিয়মিত ভাবে ১৮টি স্বাদের আইসক্রিমের পাশাপাশি এখানে কফি, স্যান্ডউইচ, আইসক্রিম ফ্লেভার শেইক ও বিভিন্ন ধরনের ঠান্ডা পানীয় পাওয়া যায়। প্রচন্ড তাপদাহে তৃষার্ত হয়ে উয়ে উঠে ছোট বড় সবাই। কিন্তু আইসক্রিম এবং কোমল ঠান্ডা পানীয় পানে নিমিশেই চাঙ্গা হয়ে উঠে। এই গরমে অইসক্রিম, কোমল জুস, অরেঞ্জ জুস, ম্যাঙ্গো জুস, লেমন আইস জুস খাওয়াকে করে সুস্বাদু ও
তৃপ্তিকর। মানুষকে বাড়তি রুচি এনে দেয় ভেতরের পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা আর আতিথিয়েতা। এক কথায় অসাধারন। আপনি ক্রিম অ্যান্ড ফাজে আসবেন কিন্তু অতিথি সেবা পাবেন না ভাবাই যায় না। অন্তত একবার এখানে ছোট-বড় যেই এসেছেন তাকে বার বার আসতেই হবে।
প্রায় ৭০ জন আরাম আয়াসে বসে খোশ-গল্প করে আইসক্রিমের স্বাদ নিতে পারবেন এখানে। ভ্যাট ছাড়া প্রতি স্কুপের জন্য খরচ হবে ১৫০ টাকা। আর কোন বা বোলের জন্য ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। সদস্যদের জন্য ছাড়ের পরিমান শতকরা ১০ ভাগ আর ছাত্রদের জন্য ১২ ভাগ। থাই চেইন ক্রিম অ্যান্ড ফাজ পূর্ব এশিয়ার দেশ গুলোতে বেশি পরিচিত এক নাম। ২০১১১ সালের মার্চে বনানীতে শুরু হলেও ঢাকায় ক্রিম অ্যান্ড কাজ এর চারটি আইসক্রিম শপ আছেÑ ধানমন্ডির প্লট- ৯১, রোড-১২/এ, ফোন-০১৭৩০৩৩২০৩। বনানী: বাড়ি-১১৬, ব্লক-ই, রোড-১১, ফোন: ০১৭৩০৪৯২০৬৩। যমুনা ফিউচার পার্ক: ফিফ্থ ফ্লোর, দোকান-৫সি-০০২, ফোন- ০১৭৩০৩৩৯২০২। প্লাজা এ আর: শপ-১১৮ (নীচতরা), রোড-২৮ (পুরাতন), মিরপুর রোড ধানমন্ডি, ফোন- ০১৭৫৪৮৫৯৫০২, খোলা থাকে সকাল ১১টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত সপ্তাহের প্রতিদিন। বিকেলে অথবা সন্ধ্যায় আপনি পরিবারকে সঙ্গে নিয়ে যেতে পারেন এই আইসক্রিম শপে। এখানে আপনার সময়টা সুন্দর কাটুক। আর সেই ওয়ারেন্টি দেবে ক্রিম অ্যান্ড ফাজ।