SHARE

সংগীতপরিচালক আজাদ রহমান আর নেই। তারই সুরে স্বাধীনতা যুদ্ধের অনুপ্রেরণাদায়ী ‘জন্ম আমার ধন্য হলো মা গো’ গানটি গাইতে পারাকে জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন মনে করেন সংগীতশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন।

নয়ীম গহরের লেখা কালজয়ী ‘জন্ম আমার ধন্য হলো মা গো’ গানটি বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাসের অবিচ্ছেদ্য অংশ। ২০১৫ সালে গীতিকার নয়ীম গহরের মৃত্যুর ৫ বছর পর গত ১৬ মে ২০২০ সুরকার আজাদ রহমানও চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, ‘জন্ম আমার ধন্য হলো মা গো’ গানের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন কীভাবে, কীভাবেই বা গানটি তার ক্যারিয়ারের মাইলফলক হয়ে উঠল। “১৯৬৯ সালে পশ্চিম পাকিস্তানের করাচিতে এক অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম। সঙ্গে আজাদ রহমান, নয়ীম গহরসহ অনেকে ছিলেন। সেখানেই নয়ীম ভাইয়ের লেখা গানটি আজাদ ভাই সুর করে আমাকে শোনান। গান শুনে বললাম, এত কঠিন! গাইতে পারব কি না চিন্তায় ছিলাম। কিন্তু আজাদ ভাই সাহস দিয়েছিলেন। পরে গানের রেকর্ডিং করলাম।”

রেকর্ডিংয়ের দুই বছরের মাথায় স্বাধীনতার যুদ্ধ শুরু হলো; যুদ্ধের নয় মাস ধরে মুক্তিযোদ্ধাদের যে গানগুলো উজ্জীবিত রেখেছে তার মধ্যে অন্যতম এটি। করাচি ট্রান্সক্রিপশন সার্ভিস স্টুডিওতে সাবিনা ইয়াসমিনের সাথে কণ্ঠ দেন নজরুল সংগীতশিল্পী ফিরোজা বেগম; নেপথ্য কণ্ঠে ছিলেন আরো কয়েকজন শিল্পী।