Home আরোও বিভাগ টিভি গাইড অন্যের কাজ দেখি অভিনয় শেখার জন্য

অন্যের কাজ দেখি অভিনয় শেখার জন্য

SHARE
piya-bipasha

নাটক-বিজ্ঞাপন এবং চলচ্চিত্রে নিয়মিত অভিনয় করে যাচ্ছেন পিয়া বিপাশা। নতুন কিছু কাজ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন গ্ল্যামার কন্যা। কথা হলো পিয়া বিপাশার সঙ্গে-

আনন্দ আলো: এখনকার ব্যস্ততা কি নিয়ে?

পিয়া বিপাশা: নাটক এবং চলচ্চিত্র- দুই মাধ্যমেই কাজ করছি। বেশকিছু খণ্ড ও ধারাবাহিক নাটকের শুটিং নিয়ে ব্যস্ত আছি।

আনন্দ আলো: আর চলচ্চিত্রের কী খবর?

পিয়া বিপাশা: সম্প্রতি ‘ইফতেখার’ ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। এ ছাড়াও ‘পিপ পিপ হুররে’, ‘ধূসর ভালোবাসা’, ‘ডায়েরি অব লাভ’, ‘মনের রাজা’, ‘প্রেম ও একটি অচেনা শহর’ ছবিগুলো মুক্তির মিছিলে রয়েছে।

আনন্দ আলো: চলচ্চিত্রেই কী স্থায়ী হতে চান?

পিয়া বিপাশা: বলতে পারেন। তারমানে ছোটপর্দাকে বিদায় দিয়ে শুধু চলচ্চিত্রে কাজ করবো বিষয়টা এমন না। ছোটপর্দা দিয়েই আমার মিডিয়ায় যাত্রা শুরু, তাই এই অঙ্গনকে বিদায় জানাতে পারবো না কখনো। তবে চলচ্চিত্রে কাজ করতে চাই বেশি। সেই লক্ষ্যেই এখন এগিয়ে চলেছি।

আনন্দ আলো: নিজের কাজ দেখা হয়?

পিয়া বিপাশা: অবশ্যই। শুধু নিজের কাজই না। অন্যদের কাজও দেখি। আমি নিজের কাজ দেখি ভুল ধরার জন্য। আর অন্যের কাজ দেখি অভিনয়টা শেখার জন্য।

আনন্দ আলো: নিজের কোনো ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা?

পিয়া বিপাশা: অভিনয় নিয়েই আমার যত চিন্তা-ভাবনা। এই অভিনয়টা নিয়েই থাকতে চাই। ভালো কিছু কাজ দর্শকদের উপহার দিয়ে সারাজীবন দর্শকদের ভালোবাসা চাই।

শুরু হয়েছে লুকানো ভালোবাসা

lokano-balobashaবিখ্যাত টার্কিশ উপন্যাসিক হালিদ জিয়া ওসাকলিগিল-এর ১৮৯৯ সালের জনপ্রিয় উপন্যাস ‘আস্ক আই মেমনু’ অবলম্বনে নির্মিত টার্কিশ ধারাবাহিক ‘লুকানো ভালোবাসা’। বিশ্বের ৭৩টি দেশে প্রচারিত অত্যন্ত জনপ্রিয় এই সিরিয়ালটির মাধ্যমেই মূলত টার্কিশ সিরিয়ালগুলো বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করে এবং আমেরিকান সিরিয়ালগুলোর শক্ত প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়ায়!। ‘লুকানো ভালোবাসা’ চ্যানেল আইতে প্রতি বুধ, বৃহস্পতি এবং শুক্রবার রাত ৮টায় বাংলায় প্রচার হচ্ছে। পুনঃপ্রচারিত হচ্ছে প্রতি মঙ্গলবার দুপুর ৩.০৫ মিনিটে এবং প্রতি বৃহস্পতিবার সকাল ১১.৩০ মিনিটে। গল্পে দেখা যাবে- বিপত্নীক- ধনী মানুষ আদনান জিয়াগিল ইস্তামবুলে সাগরের তীরে তার প্রাসাদোপম বাড়িতে দুই সন্তান নিয়ে বাস করেন। মৃত ভাইয়ের ছেলে তরুণ বেহলুলও তাদের সঙ্গে থাকে একই বাড়িতে। স্ত্রী মারা গেলে বেশ কিছু বছর একা কাটানোর পর একদিন আদনান সাহেব প্রেমে পড়েন বয়সে অনেক ছোট বিহতারের। কিন্তু মৃত মায়ের স্থানে আর কাউকে দেখতে একদম নারাজ মেয়ে নিহাল! আদনান সাহেবের এমন সিদ্ধান্তকে সবাই বুড়ো বয়সের ভিমরতী বলে ধরে নেয়- আবার কেউ কেউ গোটা ব্যাপারটাই বিহতারের মা লোভি মিসেস ফার্দিভসের চক্রান্ত বলে মনে করে। অন্যদিকে উচ্চাভিলাষী মায়ের উচ্চাকাঙক্ষার তাড়নায় অস্থির বিহতার মাকে একটা শিক্ষা দেবার জন্য এই বিয়েতে রাজি হয়! কিন্তু অসম এই বিয়ে কী সুখ বয়ে আনে তাদের জীবনে? নানা ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে কাহিনি এগিয়ে চলে এক নির্মম পরিণতির পথে।

বিচারকের আসনে সজল

কলকাতায় একটি ডান্স রিয়েলিটি শো-এর তিনটি পর্বে বিচারকের ভূমিকা পালন করেছেন জনপ্রিয় অভিনেতা সজল। সম্প্রতি কলকাতায় অনুষ্ঠানটির রেকর্ডিংয়ে অংশ নেন তিনি। সজল বলেন, ‘বড় মাপের একটি ডান্স রিয়েলিটি শো এটি। গেল এক মাস ধরে চলছে কলকাতার একটি স্টুডিওতে শুটিং। সেটার তিনটি পর্বে বিশেষ বিচারক হিসেবে থাকবো আমি। এমন আয়োজনে এবারই প্রথম। ভালোই লাগছে।’ এদিকে অনুষ্ঠানটির নাম, কোন টিভির জন্য এটি নির্মিত হচ্ছে কিংবা এতে অংশ নেয়া অন্য বিচারক ও প্রতিযোগীদের মধ্যে আর কে কে আছেন- সে বিষয়ে একেবারেই মুখ খুলেননি সজল। সজল জানান, ‘কিছু বলবো না পণ করেই অনুষ্ঠানটির সঙ্গে যুক্ত হয়েছি। ফলে কোড অব কন্ডাক্ট ভাঙা যাবে না। তবে শিগগিরই আয়োজকরা আনুষ্ঠানিকভাবে খবরটি জানাবেন বলে আশা করছি।’

লাভলুর সোনার পাখি রুপার পাখি

সম্প্রতি চ্যানেল আই-এর পর্দায় প্রচার শুরু হয়েছে ধারাবাহিক নাটক ‘সোনার পাখি রুপার পাখি’। রচনা কাজী শাহীদুল ইসলাম ও পরিচালনা করেছেন সালাহউদ্দিন লাভলু। অভিনয় করেছেন খালেদা আক্তার কল্পনা, আরফান আহমেদ, নিলয় আলমগীর, ফারজানা চুমকি, তাহমিনা সুলতানা মৌ, শাহেদ শাহরিয়ার, শাহনাজ সুমী, জোহরা ইতিপা, সোমা স্বজল, তানভির লিমন, মনিষা সিকদার, মিষ্টি মারিয়া, তন্দ্রা শ্রাবণ, রোজলিন নুসরাত প্রমুখ। প্রচার হচ্ছে প্রতি শনি ও রবিবার রাত ৭.৫০ মিনিটে। ধারাবাহিকটি গ্রামীণ জীবনের গল্প। একটা সংসারের গল্প। দাদি ,বাবা, মা, ভাই, বোন, স্ত্রী, ভাবী, ভাতিজা, ভাতিজী, আমাদের ছোটবেলা থেকে দেখে আসা যাপন করা জীবন এর গল্প। গ্রাম অথবা মফস্বল শহরে যাদের জন্ম, বেড়ে ওঠা, তাদেরই চিরচেনা জীবন। সুন্দর অতীতের গল্প, যে অতীত ফিরে পাবার জন্য, যে কেউ শৈশব, কৈশর ফিরে পাওয়ার জন্য নষ্টালজিয়াই এই নাটকের গল্পে ফুটে উঠেছে।