Home সাক্ষাৎকার ২৫ পেরিয়ে এল আর বি

২৫ পেরিয়ে এল আর বি

SHARE

মোহাম্মদ তারেক: দেশের শীর্ষস্থানীয় জনপ্রিয় ব্যান্ড এলআরবি সাফল্যের সাথে পঁচিশ বছর পার করেছে। এই দীর্ঘ পথচলায় ব্যান্ডটি অসাধারণ কিছু গান সৃষ্টি করেছে। কিছুদিন আগে এবারের জন্মদিনটি তারা উদযাপন করল একেবারেই অন্যরকম আবহে। রায়েরবাজারে জাগো ফাউন্ডেশন পরিচালিত একটি স্কুলের প্রায় ১০০ ছাত্র ছাত্রীর সঙ্গে দিনটি উদযাপন করে এলআরবি। কথা আর গানের আনন্দে কেক কাটা আর মধ্যাহ্নভোজের মধ্যদিয়ে জাগো’র এই শিশুরা অন্যরকম একটি দিন কাটায় তাদের প্রিয় মানুষ এলআরবি’র দলনেতা প্রিয় শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু ও ব্যান্ডের অন্য সদস্যদের সঙ্গে। কেক কাটার সময় উপস্থিত ছিলেন চ্যানেল আই এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, কৃষি উন্নয়ন ব্যক্তিত্ব ও চ্যানেল আইয়ের পরিচালক ও বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ, নন্দিত নির্মাতা, অভিনেতা আফজাল হোসেন, জাগোর প্রতিষ্ঠাতা করভী রাখসান্দ, প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তাবৃন্দ এবং রায়ের বাজার স্কুলের শিক্ষকদের একাংশ।

এলআরবি আর জাগোর একসঙ্গে পথ চলার শুরুটা ২০০৯ সালে। জাগো তখন কেবল হাঁটি হাঁটি পায়ে চলা শুরু করেছে রায়ের বাজার বসিত্মর গুটিকয় শিশুকে নিয়ে। নিজ উদ্যোগে এলআরবি’র দলনেতা আইয়ুব বাচ্চু জাগোর দুটি শিশুর লেখাপড়ার দায়িত্ব নেন। যে দায়িত্ব এখনও তিনি নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করে যাচ্ছেন। সেদিনের শিশু সুজন আর মর্জিনা এখন তারা ক্লাশ সেভেন আর ফাইভের ছাত্র-ছাত্রী।

এলআরবি ২৫তম জন্মদিনে আবেগঘন কিছু মুহূর্ত পার করে। অনুষ্ঠানে আইয়ুব বাচ্চু ঘোষনা দেন এলআরবি জাগোর সঙ্গে সব সময় ছিল, আছে এবং থাকবে। শিশুদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ভালো কিছু করার জন্য ইচ্ছাটাই প্রধান। তোমরা কখনো অহংকার করবে না। জাগো স্কুলে যে শিক্ষা, আদর্শ নিয়ে তোমরা বড় হচ্ছ, সততার সাথে তা মনেপ্রাণে ধারণ করবে। তোমরা অবশ্যই আকাশ ছুঁতে পারবে।

শিশুদের সঙ্গে অন্যরকম জন্মদিন উদযাপন বিষয়ে আইয়ুব বাচ্চু বলেন, এই ছোট ছোট ফুলের মতো শিশুগুলোর সঙ্গে বিশেষ এই দিনটি কাটানোর প্রতিটি মুহূর্ত আজীবন মনে থাকবে। ভক্ত শ্রোতা সহ অসংখ্য মানুষের ভালোবাসা ও সহযোগিতায় আমরা আজকের এই অবস্থানে আসতে পেরেছি। যাদের সমর্থন না পেলে ২৫টি বছর পার করা অসাধ্য ছিল। দেখতে দেখতে কখন যে ২৫টি বছর চলে গেল এটা ভাবতেই অবাক লাগছে।

২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে সেদিন রাতে বাংলাভিশন টিভি চ্যানেলে সরাসরি গানের অনুষ্ঠানে অংশ নেয় এলআরবি। কিছুদিন আগে গানের মাধ্যমে বিশ্বে শানিত্মর বার্তা ছড়িয়ে দিতে ভারতের হরিয়ানার গুরুগাঁওয়ে ডিএলএফ সাইবার হাবে আয়োজন করা হয়েছিল বিশেষ সঙ্গীত উৎসব ‘হান্ড্রেড পাইপারস নেশনস ফর পিস’। সেখানে উপমহাদেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড দলগুলোর সঙ্গে পারফর্ম করে বাংলাদেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড এলআরবি। বিশ্ব শানিত্মরক্ষায় সব শ্রেণীর মানুষকে একই সূতোয় গাঁথতে এই আয়োজন করা হয়েছিল।

উল্লেখ্য, গিটার লিজেন্ড খ্যাত ব্যান্ড তারকা আইয়ুব বাচ্চুর নেতৃত্বে ১৯৯১ সালে ৫ এপ্রিল আনুষ্ঠানিক ভাবে ব্যান্ড হিসেবে যাত্রা শুরু করেছিল এলআরবি।

শুরুর দিকে দলের লাইনআপে ছিলেন ব্যান্ডটির দলনেতা, ভোকাল ও গিটারিষ্ট আইয়ুব বাচ্চু, বেইজে স্বপন, ড্রামসে জয় ও কি-বোর্ডে এস আই টুটুল। একসময় জয়ের স্থলাভিষিক্ত হন মিল্টন। দুই বছর পর মিল্টন পাড়ি জমান লন্ডনে। তার জায়গায় আসেন রিয়াদ। ২০০২ সালে এস আই টুটুল ব্যান্ড থেকে বেরিয়ে গেলে স্থায়ী কোনো কি-বোর্ডিস্ট ছাড়াই গান চালিয়ে যায় ব্যান্ডটি। সে বছরই এলআরবিতে গিটারিষ্ট হিসেবে বাজাতে শুরু করেন মাসুদ। মাঝে অতিথি হিসেবে অনেকে বাজিয়েছেন। রিয়াদ অসুস্থ হলে তার স্থলে বাজিয়েছেন সুমন। সুস্থ হয়ে ফিরলেও কিছুদিন পর যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান রিয়াদ। তার জায়গায় ২০০৬ সালে ড্রামসের হাল ধরেন রোমেল। দশ বছর ধরে এ লাইনআপ নিয়েই চলছে এলআরবি। মাঝে মধ্যে ব্যান্ডটির সঙ্গে অতিথি হিসেবে পারফর্ম করতে দেখা যায় আইয়ুব বাচ্চুর ছেলে আহনাফ তাজওয়ার আইয়ুবকে।

২৫ বছরে মোট ১৪টি একক অ্যালবাম প্রকাশ করেছে দেশের অন্যতম নন্দিত ব্যান্ড এলআরবি। তাদের সর্বশেষ একক ‘যুদ্ধ’ প্রকাশিত হয় ২০১২ সালের অক্টোবরে।

এই দীর্ঘ সময় ধরে এলআরবি বেশ কিছু জনপ্রিয় গান উপহার দিয়েছে শ্রোতাদের। তাদের উল্লেখযোগ্য গানের মধ্যে রয়েছে ‘সেই তুমি’, ‘মাধবী’, ‘হকার’, ‘রূপালি গিটার’, ‘ফেরারী মন’, ‘এখন অনেক রাত’, ‘ঘুম ভাঙা শহরে’, ‘নীল মলাট’, ‘অপরিচিতা’, ‘রাখে আল্লাহ মারেকে’, ‘তারাভরা রাতে’, ‘ভাঙা মন নিয়ে তুমি’, ‘যুদ্ধ’ ইত্যাদি। এক সময় শ্রোতাদের মুখে মুখে ছিল গানগুলো। নব্বইয়ের দশকের শুরুতে মাধবী ও হকার নামে প্রকাশিত হয়েছিল ব্যান্ডের ডাবল অ্যালবাম। অ্যালবামের গান গুলো শ্রোতাদের মন জয় করেছিল। তারপর তো ইতিহাস। এখন পর্যনত্ম তরুণ-তরুণীদের মুখে মুখে এলআরবি ব্যান্ডের গান গুলো। ২৫ বছরে এসেও এ ব্যান্ডটি তাদের জনপ্রিয়তা ধরে রেখেছে শ্রোতাদের কাছে। বর্তমানে প্রচুর মেধাবী ব্যান্ড দল আসছে, তারা কেমন করছে বলে আপনি মনে করেন? এ প্রশ্নের জবাবে বাচ্চু বলেন, এই কথাটা আমি বিশ্বাস করি। বর্তমানে আমাদের মধ্যে বেশ কিছু মেধাবী ব্যান্ড দল আছে। এরাই এগিয়ে নিয়ে যাবে বাংলাদেশকে। কিন্তু সব সময় একটা অভিযোগ থাকে যে তরুণ প্রজন্মের শিল্পীরা কেন আপনাদের মতন হচ্ছে না? আরে তারাতো এই যুগের সনত্মান। ওদেরকে এ যুগের মতো করে সুযোগ দিতে হবে।