Home টি-২০ আড্ডা স্বামীর কাছে সব কথা বলে দেই! —চৈতি

স্বামীর কাছে সব কথা বলে দেই! —চৈতি

SHARE
Coiti

মোহাম্মদ তারেক
আনন্দ আলো: আপনি কোন চৈতি?
চৈতি: আমি ইশরাত জাহান চৈতি।
আনন্দ আলো: চৈতি নামের অর্থ কী?
চৈতি: চৈতি একটি ফুলের নাম।
আনন্দ আলো: এ যাবৎ কতজন চৈতির সাথে আপনার দেখা হয়েছে?
চৈতি: দুই জন চৈতির সাথে আমার দেখা হয়েছে। ছোটবেলার একজন ক্লাসমেট চৈতি। আরেকজন ২০০৫ সালের লাক্স চ্যানেল আই সুপার স্টার প্রতিযোগিতার সুন্দরী চৈতি।
আনন্দ আলো: আপনি ভালো গান গাইতেন। গানে ক্যারিয়ার না গড়ে অভিনয়ে এলেন কেন?
চৈতি: আমার জীবনে গান, নাচ, ছবি আঁকা সব কিছুই করেছি। নাচ এবং গানে আমি অনার্স কমপ্লিট করেছি। অভিনয়টা যখন থেকে শুরু করলাম তখন থেকে অভিনয়ের প্রেমে পড়ে যাই। তারপর তো অভিনয়েই থেকে গেলাম।
আনন্দ আলো: জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয় যে কাজটি…
চৈতি: ২০০৮ সালে লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতাটি আমার জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয় বলতে পারেন।
আনন্দ আলো: আপনার অভিনীত প্রথম নাটক….
চৈতি: প্রথম নাটক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘সাধারণ মেয়ে’ গল্প অবলম্বনে নির্মিত সাধারণ মেয়ে। এটি পরিচালনা করেছিলেন ইফতেখার আহমেদ ফাহমী। আমার সাথে অভিনয় করেছিলেন মাহফুজ আহমেদ ও আবুল হায়াত। প্রথম নাটকে অভিনয়ের সময় খুব ভয় পেয়েছিলাম তবে ইফতেখার আহমেদ ফাহমী ভাই, মাহফুজ ভাই আমাকে প্রচুর সাহস যুগিয়েছেন। এজন্য বোধকরি নাটকে আমার চরিত্রটি সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলতে পেরেছিলাম। ২০০৯ সালে চ্যানেল আইতে ‘সাধারণ মেয়ে’ নাটকটি প্রচারিত হয়।
আনন্দ আলো: যে নাটক দেখে কেঁদেছেন…
চৈতি: অনেক নাটক দেখে কেঁদেছি। তবে রবীন্দ্রনাথের উপন্যাস অবলম্বনে, নাহিদ আহমেদ পিয়ালের পরিচালনায় ‘মানভঞ্জন’ নাটকটি দেখে আমি কান্না সামলাতে পারিনি। কারণ হচ্ছে নাটকটির যখন শুটিং করি তখন আমার আম্মু সাথে ছিলেন। আম্মু নাটকটি দেখতে চেয়েছিলেন। যখন নাটকটি টিভিতে প্রচার হয় তখন বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার কারণে পুরো নাটক দেখা হয়নি। আবার যখন নাটকের সিডিটা জোগাড় করি তখন মা ছিল না। তাই নাটকটি যতবার দেখেছি ততবার কেঁদেছি।
আনন্দ আলো: অভিনয় ছাড়া আর যা ভালো করতে পারেন?
চৈতি: অভিনয় ছাড়া ভালো গান গাইতে পারি। নাচতে পারি। জম্মেশ আড্ডা দিতে পারি।
আনন্দ আলো: যাকে অথবা যাদের দেখে এখনো অভিনয় শিখি…
চৈতি: আমাদের দেশের সবার কাছ থেকে কমবেশি অভিনয় শেখার চেষ্টা করি। সুবর্না মুস্তাফা, বিপাশা হায়াত, শমী কায়সার, আফসানা মিমি, তারিন আপুদের অভিনয় দেখে এখনো অভিনয় শিখি।


আনন্দ আলো: দেশের সিনেমা দেখেন?
চৈতি: দেশের সিনেমা দেখব না মানে? এটা কি বলেন? দেশের সিনেমা দেখি নিয়মিত।
আনন্দ আলো: যে সিনেমাটা আপনার হৃদয়ে এখনো গেঁথে আছে।
চৈতি: ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত, শাজাহান খান চৌধুরী পরিচালিত বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক রাবেয়া খাতুনের উপন্যাস অবলম্বনে ‘মধুমতি’ ছবিটি এখনো আমার হৃদয়ে গেঁথে আছে।
আনন্দ আলো: আমার দেখা প্রিয় মুক্তিযুদ্ধের ছবি…
চৈতি: নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু স্যারের ‘গেরিলা’ ছবিটি আমার দেখা প্রিয় একটি ছবি।
আনন্দ আলো: মিডিয়ার যে ব্যাপারটা ভালো লাগে না?
চৈতি: লেট নাইট। এই বিষয়টা আমার কাছে একদমই ভালো লাগে না।
আনন্দ আলো: যে প্রশ্ন শুনতে শুনতে ক্লান্ত…
চৈতি: তোমার চুল কী ন্যাচারাল কার্লি।
আনন্দ আলো: জীবনের সবচেয়ে প্রিয় ঘটনা…
চৈতি: যেদিন লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতায় আমি চ্যাম্পিয়ন হই। কখনো ধারনাই করিনি এত এত প্রতিযোগীকে টপকে আমি সেরা হব। তবে এজন্য আমার পরিবারের সবার কাছে অনেক কৃতজ্ঞতা।
আনন্দ আলো: খুব রেগে যান যখন…
চৈতি: কেউ বিশ্বাস নষ্ট করলে বা মিথ্যা কথা বললে রেগে যাই।
আনন্দ আলো: অভিনয় আপনার কাছে নেশা, পেশা, স্বপ্ন নাকি ¯্রফে ফান?
চৈতি: অভিনয় আমার কাছে প্রবল আবেগের জায়গা।
আনন্দ আলো: পত্রিকার যে অংশটি আগে পড়া হয়…
চৈতি: পত্রিকার বিনোদন পাতাটা সবার আগে পড়া হয়।
আনন্দ আলো: যা করলে মন ভালো হয়ে যায়…
চৈতি: এক কাপ কফি হাতে নিয়ে প্রকৃতির কাছে যেতে পারলে মন ভালো হয়ে যায়।
আনন্দ আলো: আপনি নাকি জেগে জেগে স্বপ্ন দেখেন? ঘটনা কী?
চৈতি: স্বপ্নতো জেগে জেগেই দেখি। কারণ ঘুমালে তো আর স্বপ্ন দেখা যাবে না।
আনন্দ আলো: গোপন কোন কথাটি স্বামীর কাছে বলেন না?
চৈতি: না ভাই, স্বামীর কাছে কোনো কথা গোপন রাখি না। সব বলে দেই।