Home শীর্ষ কাহিনি আলো ছড়ানো রাইজিং স্টার!

আলো ছড়ানো রাইজিং স্টার!

SHARE
Mashrafee

রেজানুর রহমান:
মাশরাফি বিন মর্তুজাকে কি রাইজিং স্টার বলা যায়, নাকি রাইজিং স্টার বলা উচিৎ? বিশ্ব ক্রিকেটের এতো বড় তারকা, বাংলাদেশের ক্রিকেটের জীবন্ত কিংবদন্তীকে কি রাইজিং স্টার বলার কোনো যক্তি আছে? হ্যা যুক্তি আছে। মাশরাফি আমাদের ক্রিকেটে রাইজিং স্টার নয়, কিন্তু রাজনীতির মাঠে রাইজিং স্টার তো বটেই। রাজনীতির অঙ্গনে পা রাখার পর মাশরাফিকে ঘিরে শুধু নড়াইলে নয় গোটা দেশে সর্বস্তরের মানুষের মাঝে যে ধরনের পজিটিভ জাগরণ দেখা দিয়েছে তাতে তাকেই গত বছরের আলোচিত রাইজিং স্টার এর শীর্ষ তালিকায় আমরা রাখতে চাই।
পাঠক, একবার কল্পনা করুনতো… দেশের প্রতিটি জেলায় মাশরাফির মতো একজন করে তরুণের আবির্ভাব ঘটলো। তারা সবাই মাশরাফির মতো করে হাসে, মাশরাফির মতো করেই মানুষকে ভালোবাসে তাহলে দেশের চিত্রটা কেমন হবে? জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যেদিন আনুষ্ঠানিক ভাবে সারাদেশে প্রচার-প্রচারণা শুরু হয় সেদিন দেশের হয়ে ক্রিকেট মাঠে শক্তিধর ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে ক্রিকেট লড়াইয়ে ব্যস্ত ছিলেন মাশরাফি। তারপর খেলা শেষে যেদিন এলাকায় প্রথম নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন সেদিন সমর্থকদের উদ্দেশে তার পরামর্শ ছিল, আমরা এমন ভাবে নির্বাচনী প্রচারনা চালাব যাতে আমাদের প্রতিপক্ষ আঘাত না পান! নড়াইল আইনজীবী সমিতির সাথে এক মত বিনিময় অনুষ্ঠানে মাশরাফি একথা বলেন। সভায় মাশরাফির প্রতিপক্ষ দলের নেতৃবৃন্দও উপস্থিত ছিলেন। সবাই মাশরাফির কথা শুনে অভিভ‚ত হয়ে ওঠেন। কেউ কেউ আনমনে মন্তব্য করেন, সাবাশ… সাবাশ বাংলাদেশ!
রাজনীতির মাঠে রাইজিং স্টার মাশরাফির জন্য রইল আমাদের অনেক শুভেচ্ছা। আনন্দ আলো প্রতি ইংরেজি নতুন বছরের প্রথম দিনে দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গন সহ বিভিন্ন অঙ্গনের তারকাদের নিয়ে ‘রাইজিং স্টার’ শীর্ষক শীর্ষ কাহিনী প্রকাশ করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় এবারও রাইজিং স্টার ২০১৮ শীর্ষক শীর্ষকাহিনী প্রকাশ করা হলো। প্রিয় পাঠক, একটু খেয়াল করলেই দেখবেন প্রতি বছর আনন্দ আলো যাদেরকে রাইজিং স্টার উপাধি দেয় তারাই মিডিয়ায় টিকে থাকার লড়াইয়ে নির্ভরযোগ্য হয়ে উঠছে।
জিয়াউল হাসান অপূর্ব, মিডিয়ায় অনেক গুরুত্বপুর্ণ ভ‚মিকা পালন করছেন। টিভির আলোচিত নাটক মানেই অপূর্ব’র উপস্থিতি। আনন্দের সাথে বলতে চাই এই অপূর্বকেই আনন্দ আলো রাইজিং স্টার হিসেবে এক সময় তুলে ধরেছিল। তারই ধারাবাহিকতায় প্রতি বছরই আনন্দ আলো রাইজিং স্টার নিয়ে শীর্ষ কাহিনী প্রকাশ করছে এবং শীর্ষ কাহিনীতে উঠে আসা তারকারাই ভবিষ্যতে মিডিয়ায় দাপটের সাথে কাজ করছেন।

Bubli-(14)

২০১৩ সালের কথাই যদি ধরি। টেলিভিশন, চলচ্চিত্র, সঙ্গীত সহ সংস্কৃতির বিভিন্ন ক্ষেত্রে রাইজিং স্টার এর তালিকায় যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছিল তারাই মূলত বর্তমান সময়ে মিডিয়ায় ব্যাপক ঔজ্জ্বল্য ছড়াচ্ছে। ২০১৩ সালে আমরা গøামার মডেল হাসিন, প্রজাপতি কন্যা নওশাবা, মুকিত, সামিহা, তানভীর, অ্যানী, জুই, প্রসুন আজাদ, তুষ্টি, স্পর্শীয়া, মামুন, ফারিয়া, রিজভী, বড়দা মিঠু, মাহি ও বাপ্পী, বর্ষা, উপমা, ইমরান, পুজা, নাউমি, মুহিন, সাব্বির. কিশোর, সিথি সাহা সহ প্রায় ৩০ জন মেধাবী তরুণ শিল্পীকে রাইজিং স্টার বলে তুলে ধরেছিলাম। আনন্দের সাথে বলতে চাই তাদের মধ্যে অনেকেই এখন মিডিয়ায় প্রতিষ্ঠিত শিল্পী। অভিনেতা মুকিতের কথাই যদি ধরি, বর্তমানে টেলিভিশন মাধ্যমে অনেক নির্ভর যোগ্য তারকা তিনি। নওশাবা অভিনেত্রী হিসেবে অনেক আলো ছড়িয়েছেন। তানভীর তো এখন তুখোর অভিনেতার তকমা পেয়েছেন। অ্যানী, তুস্টি, স্পর্শিয়া, প্রসুন আজাদ, ফারিয়া শবনম নিজ নিজ প্রতিভার গুণে মিডিয়ায় এখন সবচেয়ে আলোচিত মুখ। বড়দা মিঠুও সমানতালে অভিনয় করে চলেছেন। চলচ্চিত্রে মাহিয়া মাহী তার অবস্থান শক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন। সঙ্গীতে ইমরানের তো এখন গগনচুম্বী জনপ্রিয়তা। মুহিন, সিথি সাহা সহ অন্যরাও সঙ্গীত জগতে পাকাপোক্ত আসন দখল করেছেন। শিল্পীদের অর্জনের এই ছবি গুলো দেখলে আনন্দে আমাদের বুক ভরে যায়।
২০১৬ সালের রাইজিং স্টার তালিকায় টিভি নাটকের ক্ষেত্রে মিষ্টি মেয়ে সাফা কবির, সবার প্রিয় জোভান, নাদিয়া নদী সহ আরও অনেকের নাম স্থান পেয়েছিল। সাফা কবির ও জোভান এখন টিভি মিডিয়া অনেক আলোচিত তারকা। চলচ্চিত্রে আমরা বিশেষভাবে বুবলীর নাম উল্লেখ করেছিলাম। বুবলীও এখন চলচ্চিত্রের পর্দায় অনেক নির্ভরযোগ্য তারকা। চলচ্চিত্রে ওই বছর ইয়াশ রোহানের নামও উঠে এসেছিল। ইয়াশ হারিয়ে যায়নি। বরং তার অভিনয় প্রতিভা দিনকে দিন আমাদের বিজ্ঞাপন মিডিয়া ও চলচ্চিত্রে ব্যাপক আলো ছড়াচ্ছে। ওই বছর ক্রীড়ায় ক্রিকেট তারকা মিরাজের নাম বিশেষ ভাবে উল্লেখ করা হয়েছিল। মিরাজ আমাদের আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের তিনিই এখন নির্ভর যোগ্য তারকা।
২০১৬ সালে রাইজিং স্টার এর তালিকায় টিভি নাটকে আমরা নীলা, অ্যালেন শুভ্র, শাহতাজ, তৌসিফ মাহবুব সহ অনেকের নাম তুলে ধরেছিলাম। আনন্দের সাথেই বলতে হয় আমাদের আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন এরা সবাই। নীলা, শুভ্র, শাহতাজ এবং তৌসিফ তো বর্তমান সময়ে অনেক জনপ্রিয় টিভি তারকা।
চলচ্চিত্রের ক্ষেত্রে রাইজিং স্টার হিসেবে আমরা পরীমনির নাম তুলে ধরেছিলাম। পরীমনিও আমাদের আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন। তিনিও এখন আমাদের চলচ্চিত্রের নির্ভরযোগ্য তারকা। একই সাথে আমরা নুসরাত ফারিয়ার কথাও বলেছিলাম। আনন্দের সাথে বলতেই হয় নুসরাত শুধু দেশে নয় পাশের দেশ ভারতের কলকাতায়ও অভিনয়ের দ্যূতি ছড়িয়েছেন।
প্রিয় পাঠক, এবারও রাইজিং স্টার ২০১৮ নিয়ে শীর্ষ কাহিনী প্রকাশ করা হলো। প্রচ্ছদ মুখ হয়েছেন সময়ের আলোচিত চিত্র নায়িকা পুজা চেরি। সদ্য কৈশোর উত্তীর্ন পুজা চেরি ইতিমধ্যে সিনেমার পর্দায় নায়িকা হিসেবে সকলের মনযোগ কেড়েছেন। সে কারণে ২০১৮ সালের সেরা রাইজিং স্টার হিসেবে আমরা পুজা চেরিকেই নির্বাচন করেছি। তবে রাজনীতির ক্ষেত্রে আমাদের বিবেচনায় সেরা রাইজিং স্টার মাশরাফি বিন মর্তুজা।
পাঠক, নতুন বছরে সবাই ভালো থাকবেন। শুভ কামনা রইল সবার জন্য।